এ যেন প্রাচীন আমলের বিনিময় প্রথা! এক শ টাকায় সুতি থ্রি পিছ কিনলেন পোশাককর্মী তাসনূর। বিছানার চাদর, মাথার ব্যান্ড, আংটি, কাচের গ্লাস, পুতুলসহ মোট ৩০০ টাকার কেনাকাটা করে হাসিমুখে বের হলেন তিনি। তবে এতে কোনো টাকা খরচ হয়নি তাঁর।

পাঁচ বছর বয়সী সন্তানের মা তাসনূরের স্বামী অটোরিকশা চালান। নিম্নবিত্ত পরিবারের গৃহবধূ তিনি। গত বৃহস্পতিবার কেনাকেটা করতে এসেছিলেন রাজধানীর মিরপুরে (সেনপাড়া, পর্বতা) অদল–বদল বা বিনিময় প্রথা স্টোরে । এটি নিম্ন ও নিম্নমধ্যবিত্ত পরিবারের মানুষের জন্য পণ্যের বিনিময়ে পণ্য কেনার দোকান। পরিচালনায় আছে বেসরকারি সংস্থা বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশন।

এ স্টোরের প্রাণ ক্রেতা–বিক্রেতা নয়; দাতা–গ্রহীতা। তাঁদের মধ্যে ঘটে পণ্যের অদল-বদল। দাতা তাঁর ব্যবহার করা (ব্যবহার উপযোগী) বা বাড়তি পণ্য ওই ফাউন্ডেশনকে দান করে দেন। পরে ফাউন্ডেশনের স্বেচ্ছাসেবকেরা তা ধুয়ে, ইস্তিরি করে, প্যাকেট করে স্টোরে সাজিয়ে রাখেন। আর এসব পণ্য যাঁদের প্রয়োজন তাঁরা নিয়ে যাচ্ছেন হাসিমুখে।

 

অদল–বদল স্টোরের আরেক বৈশিষ্ট্য, এখানে টাকার বিনিময়ে পণ্য কেনা যায় না। তাসনূরকে ৩০০ টাকার সমমূল্যের তেল, লবণ, চিনিসহ বিভিন্ন পণ্য ওই দোকানে সরবরাহ করতে হয়েছে। এরপরই তিনি তাঁর চাহিদামাফিক পণ্য নিতে পেরেছেন। তাঁর দেওয়া এই তেল, চাল, ডালসহ বিভিন্ন পণ্য বিদ্যানন্দের ‘এক টাকায় আহার’ কার্যক্রমে ব্যবহার করা হবে।

অদল–বদল স্টোরের এমন ব্যতিক্রমী কার্যক্রম আপাতত ঢাকা ও চট্টগ্রামে শুরু হয়েছে। চট্টগ্রামের স্টোর স্থায়ী হলেও ঢাকারটি শুরু হয়েছে অস্থায়ীভাবে এক মাস হলো। ভালো সাড়া পাওয়া গেলে এটিও স্থায়ীভাবে চালানো হবে। সম্প্রসারণ করা হবে এই কার্যক্রম।

বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশনের স্বেচ্ছাসেবক সুলতানা জান্নাত জানান, গত এক মাসে প্রায় সাত হাজার টাকার সমমূল্যের পণ্য বিক্রি হয়েছে এসব স্টোরে। পোশাককর্মী, শিক্ষার্থীসহ নানা শ্রেণি–পেশার মানুষ পণ্য অদল–বদল করছেন। দেখতেও আসছেন অনেকে।

মিরপুর ফলপট্টির উল্টো দিকে সাজেদা ম্যানশনের দ্বিতীয় তলায় ছিমছাম করে সাজানো অদল–বদল স্টোর। ক্রেতাকে স্টোরের মূল ফটকে ব্যাগ জমা রেখে ঢুকতে হয়। স্টোরে স্বেচ্ছাসেবক থাকেন সহায়তার জন্য। স্টোরে কনের জন্য বেনারসি ও কাতান, বরের শেরওয়ানি সাজিয়ে রাখা আছে। শার্ট, কোট, টাই, শাড়ি, সালোয়ার–কামিজ, পানির ফিল্টার, ব্যাগ, শোপিচ, হাঁড়িপাতিল, বই, জুতাসহ বিভিন্ন পণ্যের সঙ্গে একটি কম্পিউটারও আছে।

সুলতানা জান্নাত বললেন, বিয়ের শাড়ি আছে ছয়টি। তিনি নিজের একটি বিয়ের শাড়িসহ কয়েকটি শাড়ি দিয়েছেন এ স্টোরে। বিয়ের শাড়ি বা বরের শেরওয়ানি কিনতে হলে বিয়ে হবে সেই প্রমাণ দিতে হবে। একইভাবে কম্পিউটার কিনতে কোন কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ছেন, আসলেই প্রয়োজন আছে কি না, সেই প্রমাণ দিতে হবে। ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকার বিয়ের শাড়ি ২ হাজার টাকা মূল্যের সমপরিমাণ পণ্যের বিনিময়ে পাওয়া যাবে এখানে।

 

আমাদের ফেইসবুক Link :  ট্রাস্ট নিউজ ২৪

By Desk