ভাতিজার কোপে চাচা নিহত

বিরলে জমি-জমার পূর্ব বিরোধে ভাতিজার দেশীয় অস্ত্রের কোপে আপন চাচা নিহত হয়েছে। ধান কাটতে বাঁধা দেয়াকে কেন্দ্র করে ভাই ভাইয়ে তর্ক-বিতর্কের মাঝে উত্তেজিত হয়ে ভাতিজা (ভাইয়ের ছেলে) কোপ দিলে রক্তাক্ত জখম অবস্থায় হাসপাতালে নেয়ার পর মৃত্যুর এ ঘটনা ঘটে বলে জানায় প্রত্যক্ষদর্শীরা।

ভাতিজার কোপে চাচা নিহত

ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ একটি দেশীয় অস্ত্র (হাসুয়া) উদ্ধার করেছে। থানা পুলিশ ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতারের চেষ্টা করছে। নিহতর ভাই আবুল হোসেন বাবু জানান, গত প্রায় ৫/৬ বছর যাবৎ উপজেলার বিজোড়া ইউনিয়নের বল্লভপুর (মাঝাপাড়া) গ্রামের মৃত আব্দুল আজিজ এর ৫ পুত্রের মধ্যে বাড়ীর পার্শ্ববর্তী ২৬ শতকের একটি জমি নিয়ে বিরোধ চলছিল। উক্ত বিরোধীয় জমিতে ৫ ভাগে ৫ ভাই ও তাঁদের সন্তানেরা চলতি মৌসুমে ধান আবাদ করে। বিরোধকে কেন্দ্র করে ইতিমধ্যে আদালতে মামলা চলমানও রয়েছে।

গতকাল শুক্রবার দুপুরে উক্ত জমিতে থাকা ধান আব্দুল কাদের কেটে শুকাতে দেয়ার পর অপর এক ভাই আবুল হোসেন বাবু’র রোপিত ধান ক্ষেত অপর আরেক ভাই রোস্তম আলী তাঁর স্ত্রী সন্তানসহ ভাড়াটে লোকজন নিয়ে জোড়র্পূক কাটতে যায়। এ সময় আব্দুল কাদের ও আবুল হোসেন বাঁধা দিতে গেলে রোস্তম আলীর সাথে তর্ক-বিতর্কের এক পর্যায়ে ধাক্কাধাক্কি ও মারপিট শুরু হয়। মারপিটের এক পর্যায়ে রোস্তম আলীর ছেলে নাঈম ইসলাম (৩৫) ধারালো দেশীয় অস্ত্র (হাসুয়া)’র কোপ দিলে আব্দুল কাদের রক্তাক্ত জখম হোন।

এসময় আহতর আত্মচিৎকারে পরিবারের অন্যান্য লোকজনসহ প্রতিবেশিরা এগিয়ে এলে নাঈম ইসলাম ও তাঁর পিতা রোস্তম আলী এবং মাতা নারগীস বেগম ও তাঁদের ভাড়াটে লোকজন পালিয়ে যায়। সাথে সাথে আব্দুল কাদেরকে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। বিকালে এ রিপোর্ট লেখাকালীন লাশ হাসপাতাল মর্গেই ছিল। পরিবারের পক্ষ হতে উল্লেখিতদের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে বলে জানান আবুল হোসেন বাবু’র ছেলে হাসিনুর রহমান। বিরল থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ নাসিম হাবিব জানান, সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে একটি ধারালো দেশীয় অস্ত্র (হাসুয়া) উদ্ধার করা হয়েছে। ঘটনায় জড়িতদের আটকের চেষ্টা অব্যাহত আছে। মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে।

 

আমাদের ফেইসবুক পেজঃ ট্রাস্ট নিউজ ২৪