বাংলাদেশ সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারত থেকে ৫০ হাজার মেট্রিক টন চাল আমদানি করবে। দেশটির একটি প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে ১৭১ কোটি ৪৪ লাখ টাকায় এই চাল ক্রয় করা হবে। সরকারি ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে চাল আমদানির এই বিষয়টি অনুমোদন করা হয়।

দুর্যোগকালে চাল আমদানি না করে ভরা মৌসুমে চাল আমদানির সিদ্ধান্ত নিয়ছে সরকার তাই এ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন অনেক কৃষি অর্থনীতিবিদ ও কৃষক নেতারা।

এদিকে কৃষি বিভাগ এবারের আমনের বাম্পার ফলনের আশা করছে। এর মধ্যেই দেশের ৭০ শতাংশ জমির ধান কাটা শেষ। বাজারে প্রতি মণ নতুন আমন ধান এক হাজার টাকার উপরে বিক্রি হচ্ছে। ফলে বন্যার ক্ষতি কাটিয়ে কিছুটা লাভের মুখ দেখতে শুরু করেছেন কৃষকরা। এমতাবস্তায় চাল আমদানি করার ঘোষণা দিলেন সরকার।

এ সময়ে সরকারের চাল আমদানির সমালোচনা করছেন কৃষি অর্থনীতিবিদরা। এ বিষয়ে কৃষি অর্থনীতিবিদ ড. মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, গত সেপ্টেম্বরে চালের দাম বেড়ে যায়। এখন আমাদের আমদানি করতে হচ্ছে। ওই সময় এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করলে কৃষকরা এখন দাম পড়ে যাওয়া হাত থেকে রক্ষা পেতেন।

এদিকে দেশের রংপুর জেলা কৃৃৃষক সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক পলাশ কান্তি নাগ জানান, এখনোও মিল মালিকদের গোডাউনে পর্যাপ্ত চালের মজুদ রয়েছে। এরপরও তারা বাজারে চাল সরবরাহ করছে না। এক্ষেত্রে সরকারের মিল মালিকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া উচিৎ বলে মনে করেন তিন।

 

আম্দের ফেইসবুক Link :  ট্রাস্ট নিউজ ২৪

By Desk