নিজের পাঁচ সন্তানকে গত চার বছরে মাত্র একবার দেখতে পেয়েছেন ফিলিস্তিনি মা নিভান গারকুয়াদ। সন্তানদের তাদের বাবার কাছে পাঠানোর পর পরিবার থেকে তিনি পুরোপুরি বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছেন।

এই নারীর স্বামী থাকেন ২০০ কিলোমিটার দূরে অধিকৃত পশ্চিমতীরের কালকিলায়। গাজা উপত্যকার জুহর আল-দ্বীক গ্রামে বাবা-মা ও ছোট ছেলের সঙ্গে থাকেন ৩৯ বছর বয়সী এ নারী।

সন্তান ও স্বামীর সঙ্গে দেখা করতে পশ্চিমতীরে যেতে ২০১৮ সাল থেকে পাঁচবার ইসরাইলি কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করেন তিনি। কিন্তু তার সেই আবেদন কখনও মঞ্জুর হয়নি।

নিভান গারকুয়াদ বলেন, সন্তানদের সঙ্গে সর্বশেষ আমার দেখা হয়েছিল বছর চারেক আগে। তাদের সঙ্গে এক বিছানায় না শুইলে আমার ঘুম আসত না। অথচ গত চার বছর ধরে আমাদের কোনো দেখা নেই।

কেবল মোবাইল ফোনে ভিডিওকলের মাধ্যমে তাদের দেখার স্বাদ মেটাতে হয়।

তিনি আরও বলেন, মা ছাড়া সন্তানদের বেড়ে ওঠা মেনে নেওয়াও কষ্টকর। এ ছাড়া তাদের বাবা কাজের জন্য বেশিরভাগ সময় বাইরে থাকেন। এ সময় বাচ্চাদের দেখার কেউ থাকেন না।

পশ্চিমতীরে যেতে অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলের অনুমোদন নিতে হয় অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকার অধিবাসীদের। কারণ দুই অঞ্চলের মধ্যে একমাত্র যাওয়ার পথ হচ্ছে ইসরাইলি নিয়ন্ত্রিত সীমান্ত ইরেজ।

২০০৭ সালে নির্বাচনে জয়ের পর গাজা উপত্যকার নিয়ন্ত্রণ চলে যায় হামাসের হাতে। এর পর থেকে উপকূলীয় এই ছিটমহলটিকে কঠোরভাবে অবরোধ করে রাখে ইসরাইল।

 

আমাদের ফেইসবুক Link : ট্রাস্ট নিউজ ২৪

By Desk