বিশ্ববাজারে ফেব্রুয়ারিজুড়ে ৫ দশমিক ৯৪ শতাংশ দরপতনের পর চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহেও স্বর্ণের দামে বড় পতন হয়েছে। এমন টানা দরপতনের মধ্যে পড়ায় ৯ মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন পর্যায়ে চলে গেছে মূল্যবান এই ধাতুটির দাম।

স্বর্ণের পাশাপাশি সপ্তাহজুড়ে বড় দরপতন হয়েছে রুপা ও প্লাটিনামেরও। গেল এক সপ্তাহে স্বর্ণের দাম কমেছে ১ দশমিক ৮৮ শতাংশ, রুপা ৫ দশমিক ১৭ শতাংশ ও প্লাটিনাম ৪ দশমিক ৯৬ শতাংশ। বিশ্ববাজারে স্বর্ণের এ দরপতনের ধারা অব্যাহত থাকলে শিগগিরই দেশের বাজারেও স্বর্ণের দাম আরও কমানো হবে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতির (বাজুস) সাধারণ সম্পাদক দিলীপ কুমার আগরওয়ালা।

বাজুস সাধারণ সম্পাদক দিলীপ কুমার বলেন, ‘বিশ্ববাজারে স্বর্ণের দাম কমার কারণে ইতোমধ্যে দেশেও কমানো হয়েছে। এর পরও আমরা দেখছি, গত কয়েক দিন ধরে বিশ্ববাজারে স্বর্ণের দাম নিম্নমুখী। এ প্রবণতা অব্যাহত থাকলে দেশে স্বর্ণের দাম আবারও কমাব।’

মহামারী করোনার প্রকোপ কমে আসায় কয়েক সপ্তাহ ধরেই বিশ্ববাজারে স্বর্ণের দামও কমতে থাকে। তাই গত ৩ মার্চ থেকে দেশের বাজারেও এর দাম কমিয়েছে বাজুস। ভালো মানের অর্থাৎ ২২ ক্যারেটের প্রতি ভরি (১১ দশমিক ৬৬৪ গ্রাম) স্বর্ণের দাম ১ হাজার ৫১৬ টাকা কমিয়ে ৭১ হাজার ১৫১ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। পাশাপাশি ২১ ক্যারেটের স্বর্ণ ৬৮ হাজার ১ টাকা, ১৮ ক্যারেটে ৫৯ হাজার ২৫২ এবং সনাতন পদ্ধতির প্রতি ভরি স্বর্ণ ৪৮ হাজার ৯৩১ টাকা করে বিক্রি হচ্ছে।

এর আগে চলতি বছরের ১৩ জানুয়ারি ভরিতে স্বর্ণের দাম ১ হাজার ৯৮৩ টাকা কমানো হয়। সে হিসাবে দুই মাসের মধ্যে দেশের বাজারে ভরিতে স্বর্ণের দাম কমেছে সাড়ে ৩ হাজার টাকা। তবে রুপার পূর্বনির্ধারিত দামই বহাল রয়েছে। ক্যাটাগরি অনুযায়ী ২২ ক্যারেটের প্রতি ভরি রুপা বিক্রি হচ্ছে ১ হাজার ৫১৬ টাকা। ২১ ক্যারেটের রুপার দাম ১ হাজার ৪৩৫, ১৮ ক্যারেটের ১ হাজার ২২৫ এবং সনাতন পদ্ধতির রুপার দাম ৯৩৩ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

 

আমাদের ফেইসবুক Link : ট্রাস্ট নিউজ ২৪

By Desk