আগামী ২২ এপ্রিল থেকে মার্কেট, দোকান ও ক্ষুদ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুল দেয়ার দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতি। সেই সঙ্গে ঈদের আগে ঋণ প্রণোদনা হিসাবে সরকারের কাছে ৪৮ হাজার ৩৫৪ কোটি টাকা দাবি করেছেন তারা।

রোববার নিউমার্কেট ব্যবসায়ী সমিতির কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব দাবি জানানো হয়।

এ সময় লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতির সভাপতি মো. হেলাল উদ্দিন।

করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউয়ে সরকার সারা দেশে এক সপ্তাহের কঠোর বিধিনিষেধ জারি করে গত ৪ এপ্রিল। পরদিন থেকেই দোকানপাট খুলে দেওয়ার দাবিতে রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশে বিক্ষোভ করেন ব্যবসায়ীরা।

ব্যবসায়ীদের আন্দোলনের মুখে ৯ এপ্রিল থেকে ১৩ এপ্রিল পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিধি মেনে শপিংমল ও দোকানপাট খোলার অনুমতি দেয় সরকার। প্রথম দফায় ঢিলেঢালা লকডাউন পালনের পর ১৪ এপ্রিল থেকে দেশব্যাপী আবার এক সপ্তাহের সর্বাত্মক লকডাউন ঘোষণা করা হয়। দ্বিতীয় দফার লকডাউনের মেয়াদ শেষ হবে ২১ এপ্রিল রাত ১২ টায়।

এদিকে দ্বিতীয় দফার কঠোর লকডাউন শেষ হওয়ার আগেই এর সময়সীমা আরও এক সপ্তাহ বাড়ানোর পরিকল্পনা করছে সরকার।

জানা গেছে, আগামী ১৯ এপ্রিল সোমবার এ সংক্রান্ত একটি শীর্ষ পর্যায়ের সভা অনুষ্ঠিত হবে। সেই সভার মতামত নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন সাপেক্ষে চলমান লকডাউন আরও এক সপ্তাহ বাড়িয়ে ২২ এপ্রিল থেকে আগামী ২৮ এপ্রিল পর্যন্ত চলতে পারে। এর মধ্যেই ব্যবসায়ীরা মার্কেট, দোকান ও ক্ষুদ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুল দেয়ার দাবি জানালেন।

এ সময় লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতির সভাপতি মো. হেলাল উদ্দিন।

করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউয়ে সরকার সারা দেশে এক সপ্তাহের কঠোর বিধিনিষেধ জারি করে গত ৪ এপ্রিল। পরদিন থেকেই দোকানপাট খুলে দেওয়ার দাবিতে রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশে বিক্ষোভ করেন ব্যবসায়ীরা।

ব্যবসায়ীদের আন্দোলনের মুখে ৯ এপ্রিল থেকে ১৩ এপ্রিল পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিধি মেনে শপিংমল ও দোকানপাট খোলার অনুমতি দেয় সরকার। প্রথম দফায় ঢিলেঢালা লকডাউন পালনের পর ১৪ এপ্রিল থেকে দেশব্যাপী আবার এক সপ্তাহের সর্বাত্মক লকডাউন ঘোষণা করা হয়। দ্বিতীয় দফার লকডাউনের মেয়াদ শেষ হবে ২১ এপ্রিল রাত ১২ টায়।

এদিকে দ্বিতীয় দফার কঠোর লকডাউন শেষ হওয়ার আগেই এর সময়সীমা আরও এক সপ্তাহ বাড়ানোর পরিকল্পনা করছে সরকার।

জানা গেছে, আগামী ১৯ এপ্রিল সোমবার এ সংক্রান্ত একটি শীর্ষ পর্যায়ের সভা অনুষ্ঠিত হবে। সেই সভার মতামত নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন সাপেক্ষে চলমান লকডাউন আরও এক সপ্তাহ বাড়িয়ে ২২ এপ্রিল থেকে আগামী ২৮ এপ্রিল পর্যন্ত চলতে পারে। এর মধ্যেই ব্যবসায়ীরা মার্কেট, দোকান ও ক্ষুদ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুল দেয়ার দাবি জানালেন।

 

আমাদের ফেইসবুক Link : ট্রাস্ট নিউজ ২৪

By Desk