দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটে গোল আলুর বাম্পার ফলন

দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটে চলতি মৌসুমে উপজেলার ৪টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় গোল আলুর বাম্পার ফলন হয়েছে। উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে এই মৌসুমে উপজেলায় ও পৌরসভায় মোট ১ হাজার ৫’শ ৭৫ হেক্টর জমিতে আলুর চাষ হয়েছে।

দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটে গোল আলুর বাম্পার ফলন
দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটে গোল আলুর বাম্পার ফলন


ঘোড়াঘাট (দিনাজপুর) সংবাদদাতা, জিল্লুর রহমান: দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটে চলতি মৌসুমে উপজেলার ৪টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় গোল আলুর বাম্পার ফলন হয়েছে। উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে এই মৌসুমে উপজেলায় ও পৌরসভায় মোট ১ হাজার ৫’শ ৭৫ হেক্টর জমিতে আলুর চাষ হয়েছে। এবার আলু আবাদ বাম্পার ফলনের আশাও করছেন কৃষকরা।

উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ এখলাছ হোসেন সরকার বলেন, চলতি মৌসুমে আগাম জাতের আলু প্রায় ১ মাস পূর্বেই উত্তোলন শুরু হয়েছে। ফলন ও দাম ভালো পাচ্ছেন কৃষকরা । আলু আবাদে মুজুরি খরচ, কীটনাশক, সার ও সেঁচ খরচ কম লাগে ফলে আলুর আবাদ লাভ জনক।

তিনি আরো জানান, চলতি শীত মৌসুমের কনকনে শীত ও ঘন কুয়াশার পূর্বের আলুর গাছ পরিপক্কতা পাওয়ায় এবং কৃষি অফিসের পরামর্শ মতো আলু চাষীরা কাজ করায় কোল্ড ইঞ্জুরি থেকে রেহাই পেয়েছে আলু চাষীরা। আলুর চাষ লাভজনক হওয়ায় এখন আলু চাষীরা প্রতি বছর আলু চাষ করে থাকেন। মানুষের শরীরে শর্করার চাহিদা মেটাতে আলু পাশাপাশি ভাতের পুষ্টির চাহিদা পূরণ করে। আলুর দ্বারা বহুমুখী খাদ্য তৈরি হয়। বর্তমানে নানা উপায়ে নানা ভাবে আলু দ্বারা বৈজ্ঞানিক উপায় দ্বারা খাদ্য তৈরিতে সহায়তা করছে। আলু চাষিরা আগাম জাতের আলু রোপণের লক্ষ্যে একই জমিতে আগাম জাতের ধান রোপণ করে থাকেন।

এছাড়াও পতিত জমিতেও আগাম জাতের আলু আলুর আবাদ করেন। এ আগাম জাতের আলু চওড়া দামে বিক্রি করে লাভবান হন। এ আশায় তারা প্রতিবছর আগাম জাতের আলু চাষ করেন। এ উপজেলায় উন্নত ফলনশীল (উফসি) জাতের আলু চাষ হয়েছে ৯’শ ৬০ হেক্টর জমিতে ও স্থানীয় জাতের চাষ হয়েছে ৬’শ ১৫ হেক্টর জমিতে।

ক্যাপশনঃ ঘোড়াঘাটে গোল আলুর বাম্পার ফলনে আলু উত্তোলন শুরু করেছে আলু চাষীরা