করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু,ইউএনও ও ওসির তত্ত্বাবধায়নে জানাজা ও দাফন কার্য সম্পন্ন

করোনার উপসর্গ নিয়ে নরসিংদীতে মৃত্যুবরণকারী দিনাজপুর জেলার খানসামা উপজেলার ভাবকী ইউনিয়নের রামনগর এলাকার কফিল উদ্দিন (৬০) কে ইউএনও ও ওসির তত্ত্বাবধায়নে জানাজা ও দাফন কার্য সম্পন্ন করা হয়েছে।

করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু,ইউএনও ও ওসির তত্ত্বাবধায়নে জানাজা ও দাফন কার্য সম্পন্ন
করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু,ইউএনও ও ওসির তত্ত্বাবধায়নে জানাজা ও দাফন কার্য সম্পন্ন


      
করোনার উপসর্গ নিয়ে নরসিংদীতে মৃত্যুবরণকারী দিনাজপুর জেলার খানসামা উপজেলার ভাবকী ইউনিয়নের রামনগর এলাকার কফিল উদ্দিন (৬০) কে ইউএনও ও ওসির তত্ত্বাবধায়নে জানাজা ও দাফন কার্য সম্পন্ন করা হয়েছে।

সোমবার (১৮ এপ্রিল)  দুপুর ১২টার দিকে উপজেলার ভাবকী ইউনিয়নের রামনগর এলাকায় ওই মৃত ব্যক্তিকে দাফন করা হয়।

মৃত ব্যক্তির পরিবারের সদস্যরা জানান, কফিল উদ্দিন নরসিংদীতে কাজ করতে যান।সেখানে তিনি ইটভাটাতে কাজ করতেন। সেখানে সে গত রবিবার করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যান। 

সোমবার সকালের মধ্যেই তার লাশ এলাকায় আসলে এলাকাবাসী লাশ এলাকায় ঢুকতে দেয়নি। পরে মৃতদেহটি দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

খবর পেয়ে স্থানীয় চেয়ারম্যান সফিকুল ইসলাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে অবহিত করেন। পরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও খানসামা থানার অফিসার ইনচার্জ মৃতদেহটি এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে নিয়ে এসে বাড়ির পাশেই কবরস্থানে দাফনকার্য সম্পন্ন করেন।

এ বিষয়ে খানসামা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শেখ কামাল হোসেন জানান , ‘আমরা যখন খবর পেয়েছি নরসিংদীতে মারা যাওয়া কফিল উদ্দিন নামের ওই ব্যক্তির লাশ এলাকায় ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না, তখন আমরা লাশ এলাকায় নিয়ে আসার ব্যবস্থা করি। আমাদের সবসময় মাঠ পর্যায়ে কাজ করতে হয়। আমরাও ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছি, কিন্তু মানবিকতার বিষয়ে আমাদেরও সবার পাশে দাঁড়াতে হয়। এই কঠিন পরিস্থিতিতে মানুষ যাতে আতঙ্কিত না হয় সেজন্য আহবান জানান ওসি। ’

খানসামা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আহমেদ মাহবুব-উল ইসলাম বলেন, ‘গতকাল রবিবার করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা যান কফিল উদ্দিন।

আমাদের তত্ত্বাবধায়নে উপজেলায় যে করোনাভাইরাস প্রতিরোধের কমিটি আছে তাদের মধ্যে ৪জন ব্যক্তিকে নিয়ে জানাজা ও দাফন কার্য সম্পন্ন করি। মৃত ব্যক্তির দুই ছেলের মধ্যে এক ছেলে ও এক নাতি জানাজায় উপস্থিত ছিলেন। মৃত ব্যক্তির করোনা হয়েছিল কিনা এ জন্য নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। নমুনার ফলাফল আসলেই বোঝা যাবে সে করোনায় আক্রান্ত ছিলো কি না।