নাটোরে ধর্ষণ মামলায় উভয় পরিবারের সম্মতিতে জেলা ও দায়রা জজ আদালত চত্বরে অভিযুক্ত ধর্ষক মানিক হোসেনের সঙ্গে ওই নারীর বিয়ে সম্পন্ন হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৯ নভেম্বর) বিয়ের পর বাদীর জামিনে অভিযোগ না থাকায় জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক আব্দুর রহমান সরদার তার জামিন মুঞ্জুর করেছেন।

মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে, চলতি বছরের ১৮ সেপ্টেম্বর রাতে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে গুরুদাসপুর উপজেলার চাপিলা ইউনিয়নের রওশনপুর উত্তরপাড়া গ্রামের ওই নারীকে তার নিজ বাড়িতে একই এলাকার আব্দুস সালামের ছেলে মানিক হোসেন ধর্ষণ করেন। বিষয়টি স্থানীয়ভাবে আপস না হওয়ায় ১৯ অক্টোবর ওই নারী বাদী হয়ে গুরুদাসপুর থানায় মামলা দায়ের করেন। পুলিশ ওইদিন অভিযুক্ত মানিককে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠায়।

আসামিপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট মঞ্জুরুল আলম বলেন, অভিযুক্ত মানিক জেলহাজতে থাকায় উভয় পরিবার মানিক ও ওই নারীর বিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। উভয় পরিবার তাদের বিয়ের জন্য আদালতে সম্মতি জানিয়ে মামলার নির্ধারিত দিনে অভিযুক্ত মানিকের জামিন আবেদন করা হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে বিচারক আব্দুর রহমান সরদারের তাদের বিয়ের আদেশ দেন। তাদের বিয়ে সম্পূর্ণ হলে মানিকের জামিন দেন বিচারক। বিয়ের কাজী আব্দুল মমিন বলেন, আদালতের নির্দেশে এই বিয়ে সম্পূর্ণ করা হয়। আর বিয়ের দেনমোহর ধার্য করা হয় ৪ লাখ ৫০ হাজার টাকা। বিকেলে নাটোর জেলা কারাগার থেকে মুক্তি পান অভিযুক্ত মানিক।