হলুদ খামের লাল ডাক বাক্স, এটি চিঠি ফেলার জন্য নয়। নির্মাণ করা হয়েছে ডাক বিভাগের নতুন সদর দফতর হিসেবে। দেশে প্রথম কোনো ভবন নির্মাণ করা হলো এমন নান্দনিক ডিজাইনে, যা চিঠি ফেলার বক্সের আদলে। ফলে গুলিস্তান থেকে সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে ঢাকার প্রাচীনতম জিপিও। নতুন সদর দফতর হবে ঢাকার আগারগাঁও। ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী বলেছেন, প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধনের অপেক্ষায় রয়েছে নতুন ডাক ভবন। এর ফলে কাজের গতি ফিরবে ডাক বিভাগে।

নতুন ডাক ভবন

ঢাকার জিপিও। একসময়ের যোগাযোগের মাধ্যম যে চিঠি পৌঁছে যেত প্রিয় মানুষের কাছে। সেই কর্যক্রম নিয়ন্ত্রিত হতো এখান থেকেই। ডাক ভবনের কর্মচাঞ্চল্যতার কেন্দ্রে ছিলেন যে ডাকবাহক রানার, আজ তারা মন্থর, কালের পরিবর্তনে মানুষের কাছে গুরুত্ব হারিয়েছে চিঠির আবেদন। ১৯৭১ সালে ২০ ডিসেম্বর বাংলাদেশ ডাক বিভাগের কার্যক্রম শুরু হলেও, এই ভবনে ১৯৬২-৬৩ সালে অপারেশনাল কর্যক্রম শুরু হয়। কিন্তু মোবাইল, ইন্টারনেটের যুগে পিছিয়ে থাকতে চায় না ডাক বিভাগ। এরই মধ্যে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্মাণ করা হয়েছে হয়েছে ডাক বক্সের আদলে দৃষ্টিদন্দন ডাক ভবন।

৯১ কোটি ৯০ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হয়েছে ১৪ তলা ভবন। যেখানে প্রশাসনিক কার্যক্রম পরিচালনার পাশাপাশি থাকছে অডিটরিয়াম, বঙ্গবন্ধু কর্নার, মুক্তিযুদ্ধে বীর সন্তানদের কীর্তিগাথা ইতিহাস। এ ছাড়া জাদুঘর, গ্রন্থাগারসহ আধুনিক সুবিধা। এই ভবন দেখতে প্রতিদিনই ভিড় করছে সাধারণ মানুষ। একজন তরুণ বলেন, আসলে বাংলাদেশের মতো দেশে এত সুন্দর একটা বিল্ডিং কল্পনা করা যায় না। এক শিশু বলেন, প্রথম চিঠির পোস্টের মতো একটা বিল্ডিং দেখলাম। এক মহিলা বলেন, চিঠি জিনিসটা ভুলেই গেছি। আমি আমার বাচ্চাকে নিয়ে আসছি এটা দেখাতে।

সময়ের সঙ্গে সঙ্গে বেড়েছে ডাক বিভাগের কাজের পরিধি। পরিবহন কর্যক্রম ছাড়া বেশির ভাগ অফিসের কর্যক্রম চালানো হবে নতুন সদর দফতর থেকে। ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী জানান, নতুন ভবনের সব কার্যক্রম এরই মধ্যে শেষ করেছে ডাক বিভাগ। ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেন, পূর্ণ প্রস্তুতি নিয়ে বসে আছি। প্রধানমন্ত্রী যেদিন ভার্চুয়ালি উদ্বোধন করার জন্য সময় দেবেন সেই দিন আমরা এই ডাকঘর উদ্বোধন করতে পারব।

ডাক বিভাগের ৫৬ বছরের পুরনো গুলিস্তানের জিপিওর ইতি ঘটিয়ে এখন আগারগাঁওয়ে কার্যক্রম শুরুর অপেক্ষায় ডাক বিভাগ। লাল টুকটুকে এই ১৪ তলা ডাক বক্সই ডাক বিভাগের সদর দফতর। সংশ্লিষ্টরা মনে করেন, প্রাচীন ও ঐতিহ্যবাহী প্রতিষ্ঠানের নতুন দৃষ্টিনন্দন স্থাপনা ডাক বিভাগের কর্মীদের নতুন করে উজ্জীবিত করবে। যার মধ্য দিয়ে হারিয়ে যাওয়া গতি ফিরবে ডাক বিভাগের।

আমাদের ফেইসবুক Link: ট্রাস্টনিউজ২৪