সৌদির তেলক্ষত্রে হামলার প্রভাব পড়ছে অর্থবাজারে

ডেক্স নিউজ- সৌদি আরবের রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন তেল কোম্পানি আরমকো’র দুটি স্থাপনায় ড্রোন হামলা চালিয়েছে ইয়েমেনের হুথি বিদ্রোহীরা। উৎপাদন কার্যক্রম বন্ধ হয়ে গেছে সেখানে।

সৌদির তেলক্ষত্রে হামলার প্রভাব পড়ছে অর্থবাজারে
সৌদির তেলক্ষত্রে হামলার প্রভাব পড়ছে অর্থবাজারে

ডেক্স নিউজ- সৌদি আরবের রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন তেল কোম্পানি আরমকো’র দুটি স্থাপনায় ড্রোন হামলা চালিয়েছে ইয়েমেনের হুথি বিদ্রোহীরা। উৎপাদন কার্যক্রম বন্ধ হয়ে গেছে সেখানে।

সৌদি আরবের পূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশ দাহারান থেকে ৬০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থিত আবকাইক তেলক্ষেত্র। আর খুরাইস তেলক্ষেত্র ওই স্থান থেকে আরও ২০০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থিত।

এই হামলার প্রভাবে বিশ্বের তেল সরবরাহে বড় ধরনের জটিলতা দেখা দিচ্ছে। বেড়ে গেছে তেলের দাম।

বিবিসি জানায়, শনিবারের হামলার পর বিশ্বে জ্বালানি তেলের সরবরাহ ৫ শতাংশেরও বেশি কমে গেছে। এর প্রভাবে আজ সোমবার অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের মূল্য ১৯ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। ফলে ব্যারেল প্রতি দাম দাঁড়িয়েছে প্রায় ৭২ ডলার।

সৌদি আরবের জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের সূত্র উদ্ধৃত করে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ানের খবরে বলা হয়েছে, ড্রোন হামরায় প্রতিদিন ৫০ লাখ ব্যারেল উৎপাদন কমিয়ে দিয়েছে। যা সৌদি আরবের তেল উৎপাদনের অর্ধেক। আগামী ৪৮ ঘণ্টায় তেলের উৎপাদন আরও কমাতে পারে সৌদি আরব।

তবে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প দেশটির রিজার্ভ থেকে তেল ছাড়ার বিষয়টি অনুমোদন করার পর জ্বালানি তেলের দাম আবারো কমে আসে।

ড্রোন হামলার এই ঘটনায় ইতোমধ্যে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে সৌদি আরব। হামলার পর সামগ্রিক পরিস্থিতি নিয়ে মিত্র দেশ যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে ফোনে কথা বলেন সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান (এমবিএস)। এ সময় যুবরাজ ট্রাম্পকে সাফ জানিয়ে দেন, এ হামলার জবাব দিতে তার দেশ প্রস্তুত রয়েছে।

শনিবারের এই ড্রোন হামলায় উপসাগরীয় অঞ্চলে উত্তেজনা বাড়িয়ে দিয়েছে। এদিকে হুথি বিদ্রোহীদের সমর্থন দেয় ইরান। তাদেরকে অত্যাধুনিক ড্রোন নির্মাণেও সহায়তা দিয়েছে তেহরান।

কিন্তু মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও দাবি করেছেন, ইয়েমেন থেকে এই ড্রোন হামলা চালানো হয়েছে বলে কোনও প্রমাণ পাওয়া যায়নি। তিনি হামলার জন্য ইরানকে দায়ী করেছেন।