যৌতুকের জন্য চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ায় চরম নৃশংসতার শিকার হলো গৃহবধূ। পেট্রোল ঢেলে স্বামী রাফেল পুড়িয়ে দিয়েছে স্ত্রী ইয়াসমিনকে। এতেও ক্ষান্ত হয়নি সে। পোড়া শরীরেই চালায় নির্যাতন। ঘটনার পর পালিয়ে যাওয়ার সময় রাফেলকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ইয়াসমিনের বাবা বাদী হয়ে হত্যা চেষ্টা মামলা করেছেন। পোড়া শরীর নিয়ে বার্ন ইউনিটে মৃত্যুর সাথে লড়ছেন গৃহবধূ ইয়াসমিন। ভালোবেসে বিয়ে করা স্বামীর নিষ্ঠুরতা ও পাশবিকতার আগুনে মৃত্যুপথযাত্রী ইয়াসমিন।

দীর্ঘদিন ধরে ইয়াসমিনের বাবা, রাফেলকে যৌতুকের টাকা দিয়ে আসছিলেন। সর্বশেষ টাকা না পেয়ে বৃহস্পতিবার রাতে ইয়াসমিনের শরীরে প্রথমে মোটরসাইকেলের পেট্রোল ঢেলে আগুন দেয় তার স্বামী। এখানেই শেষ হয়নি রাফেলের নির্মমতার। একপর্যায়ে পোড়া শরীরের উপরে চলে নির্যাতন।
গৃহবধূর বাবা বলেন, বিভিন্ন সময় যৌতুকের দাবি করেছে। পরে আমি তারে ক্যাবল ব্যবসা দিয়ে প্রতিষ্ঠিত করে দিয়েছি। এরপরও সে যৌতুকের দাবি করেছে, না দেওয়াতেই এই ঘটনা।

চিকিৎসকরা জানান, ইয়াসমিনের শরীরের ৪০ শতাংশ পুড়ে গেছে। আশংকাজনক হওয়ায় তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয় ঢাকায়। এ ঘটনায় রাফেলের বিরুদ্ধে রাঙ্গুনিয়া থানায় ইয়াসমিনের বাবা বাদী হয়ে হত্যা চেষ্টার মামলা করেছেন। চট্টগ্রাম রাঙ্গুনিয়া অফিসার ইনচার্জ মাহবুবুল আলম মিল্কি বলেন, তার শরীরে প্রায় ৪০ পারসেন্ট পুড়ে গেছে। অবস্থা আশঙ্কাজনক, তাই তাকে নিয়ে আমরা পুরোপুরি আশাবাদী হতে পারছি না। সাত বছর আগে ভালোবেসে বিয়ে করে রাফেল-ইয়াসমিন। ৪ বছরের একটি ছেলে সন্তান আছে তাদের।