পৌষ মাসের শুরুতে তেমন শীত না থাকলেও মাঝে কয়েক দিন ও মাঘের শুরুতে এর তীব্রতা বৃদ্ধি পেয়েছে। কনকনে শীত জেঁকে বসেছে। সকাল ও রাতে হিমেল হাওয়া আর কুয়াশায় চরম দুর্ভোগে পড়েছে এ অঞ্চলের ছিন্নমূল ও খেটে খাওয়া শ্রমজীবী মানুষ। বীজতলা নিয়ে চিন্তিত কৃষক। কনকনে ঠাণ্ডায় জবুথবু অবস্থা।

শীতে কাঁপছে দিনাজপুরবাসী

গত বুধবার থেকে মৃদ্যু শৈত্যপ্রবাহ দিনাজপুরসহ উত্তরাঞ্চলের উপর দিয়ে বয়ে যাচ্ছে। এর প্রভাবেই কাপঁছে দিনাজপুরবাসী। আরও ২/১দিন শৈত্য প্রবাহের প্রভাব থাকবে।

বৃহস্পতিবার দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা দিনাজপুরে ৭ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে বলে আবহাওয়া অফিস জানায়। আবহাওয়া অফিসের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তোফাজ্জুর হোসেন জানায়, দিনাজপুরের উপর দিয়ে মৃদ্যু শৈত্য প্রবাহ প্রবাহিত হওয়ায় ঠান্ডার পরিমাণ বেড়ে গেছে। বৃহস্পতিবার সকাল ৬ টায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৭ দশমিক ৪ডিগ্রী সেলসিয়াস রেকর্ড এবং সকাল ৯টায় তা আরো কমে দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রের্কড করা হয়েছে ৭.১ ডিগ্রী সেলসিয়াস। তাপমাত্রার সাথে পশ্চিমা বাতাস থাকায় কনকনে শীত অনুভুত হচ্ছে। এ ঠান্ডা আরও ২/১দিন থাকবে। রবিবারের পর ঠান্ডা কমার সম্ভাবনা রয়েছে।

আমাদের ফেইসবুক Link: ট্রাস্টনিউজ২৪