শীতের তীব্রতা বাড়তে শুরু করেছে রংপুরসহ উত্তরের জেলাগুলোতে। ঝুঁকি এড়াতে ভোরে হেডলাইট জ্বালিয়েই যান চলাচল করছে। দেশে বৃহস্পতিবার (২৬ নভেম্বর) সর্বনিম্ন তাপমাত্রা পঞ্চগড়ের তেতুঁলিয়ায় ১১ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে। এখনো শীত জেঁকে বসেনি। কিন্তু কুয়াশায় ভোরে যান চলাচলটা ঝুঁকিপূর্ণ। তাই হেডলাইট জ্বালিয়েই চলছে গাড়ি। মধ্যরাতের পর বাড়তে থাকে শীত। তবু ভোরের আলো ফোটার আগেই ঘর থেকে কাজের জন্য বের হতে শুরু করে শ্রমজীবী মানুষ।

হিমের পাহাড় হিমালয়ের পাদদেশে অবস্থান বলে উত্তরের রংপুর-দিনাজপুর অঞ্চলের জেলাগুলোতে শীতের দাপট এমনিতেই একটু বেশি। আগেভাগে শীত আসা, দেরিতে যাওয়া আর বেশি তীব্রতার দুর্ভোগ পোহাতে হয় এই অঞ্চলের মানুষকেই। আবহাওয়া অফিস বলছে, তাপমাত্রা কমতে শুরু করেছে। তবে এবার প্রথম মৃদু থেকে মাঝারি ধরণের শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে ডিসেম্বরের মাঝামাঝি।

রংপুর আবহাওয়া অফিসের ইনচার্জ মোস্তাফিজার রহমান বলেন, ডিসেম্বরের মাঝামাঝি পর্যায়ে মাঝারি আকারের শৈত্যপ্রবাহ হতে পারে। এরপর আরো কিছু শৈত্যপ্রবাহ আমরা পাবো। চলতি বছর বেশি বৃষ্টিপাতের কারণে শীতের তীব্রতা কম হতে পারে বলে মনে করছেন আবহাওয়াবিদরা।